স্টাফ রিপোর্টার : ঈদ শেষে করোনা ঝুঁকি নিয়েই জীবিকার তাগিদে ঢাকা ফিরছে মানুষ। বৃহস্পতিবার দিনভর রাজধানীর বিভিন্ন প্রবেশ পথে ছিলো মানুষের উপচে পড়া ভীড়। এক্ষেত্রে কোনো ভাবেই মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি বা সামাজিক দূরত্ব। গণপরিবহন বন্ধ থাকায় ব্যক্তিগত বাহনই রুপ নিয়েছে গনপরিবহনে। প্রাইভেটকার, মাইক্রোবাস অটোরিকশা, মোটরসাইকেল চালকেরাও যাত্রী পরিবহণ করছে কোন সুরক্ষা ছাড়াই।

পুলিশ বলছে, বাড়তি লোকের চাপ সামাল দিতে ব্যবস্থা নিয়েও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পারেছেন না তারা।

সিমুলিয়া ফেরিঘাটে জনস্রোত। করোনা পরিস্থিতিতে নারীর টানে বাড়ি ফেরা মানুষগুলোই এখন জীবিকার তাগিদে ফিরছেন রাজধানীতে। নেই সামাজিক দূরত্বের বালাই, অনেকটাই উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধিও।

এক বাসিন্দা মোহাম্মদ রিপন গ্রামের বাড়ি নড়াইল থেকে পরিবারসহ ফিরছেন ঢাকায়। গণপরিবহন না থাকায় বাধ্য হয়েই গাদাগাদি করে যাচ্ছেন ব্যক্তিগত বাহনে।

ঢাকায় ফেরা যাত্রীবাহী ফেরীগুলোতেও কোনো ভাবে মানা হচ্ছে না সামাজিক দূরত্ব। যাত্রীদের ক্ষোভ গাদাগাদি করে অনেকটা বাধ্য হয়েই যেতে হচ্ছে তাদের।

ব্যক্তিগত গাড়ি ছাড়া চলাচল নিষেধ থাকলেও নির্দেশনা অমান্য করে যে যেভাবে পারছে ঢাকা ফিরছে। এ সুযোগে অটোরিকশা, মাইক্রোবাস, মোটরসাইকেল চালকেরা যাত্রী পরিবহন করছে কোন সুরক্ষা ছাড়াই।

তবে পুলিশ তাদের অসহায়ত্বের কথা। ব্যবস্থা নিয়েও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পারেছেন না তারা।

৩১শে মের পর সাধারণ ছুটি বন্ধের ঘোষণায় চাপ বেড়েছে রাজধানীর প্রবেশপথে। এক্ষেত্রে সামাজিক দুরুত্ব নিশ্চিত করা না গেলে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি আরো বাড়ার আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা।