স্টাফ রিপোর্টারঃ সাংসদ হাবিবুর রহমান মোল্লার মৃত্যুতে শূন্য হওয়া আসনে ডজন খানেক প্রার্থী এমপি হতে আওয়ামীলীগের নমিনেশনের জন্য মাঠ চষে বেড়াচ্ছে।বিএনপি থেকে দুজন,জাতীয় পার্টির একজন প্রার্থীর নাম শোনা যাচ্ছে।তবে বিরোধী দলের প্রার্থীতা নিয়ে নমিনেশন কন্দ্রিক গ্রুপিং না থাকলেও অস্থিরতা বিরাজ করছে ক্ষমতাসীন দলের মনোনয়ন নিয়ে।সবচে বেশী অস্থিরতায় ভুগছে পরিবহন চাঁদাবাজরা ।বর্তমানে পরিবহন সেক্টরের চাঁদাবাজি নিয়ন্ত্রন করছে সাবেক এমপি সদ্যপ্রয়াত মরহুম বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব হাবিবুর রহমান মোল্লার অনুগত কর্মীরা।এদের মধ্যে যাত্রাবারি-ডেমড়া স্টাফকোয়র্টার, কোনাপারা, চিটাগাং রোড,যাত্রাবারি-রুপসী তারাব যাত্রাবারি-সাইন বোর্ড,চিটাগাং রোড ,শ্যামপুর-ঢাকাম্যাচ-যাত্রাবারি,শহীদ ফারক রোড-সদর ঘাট,বাহাদুরশাহ পরিবহন গুলো নিয়ন্ত্রন করে আসছে লেগুনা পরিবহন শ্রমিক কমিটির সেক্রেটারি বাচ্চু খন্দকার।যাত্রাবারি-গাজীপুর তুরাগ পরিবহনের চাঁদা নিয়ন্ত্রন করে আবুল হোসেন।এতদিন স্থানীয় এমপির আশীর্বাদ-পুস্ট হয়ে এক প্রকার নির্বিঘ্নে চাদা তুলে আসলেও নমিনেশন যদি সাবেক এমপি পরবার থেকে কেহ না পায় তাদের অবস্থান কোথায় গিয়ে দাড়াবে? এই নিয়ে চাদাঁবাজরা রয়েছে চরম অস্থিরতায়।পরিবহন চাঁদাবাজরা আশা করছে প্রয়াত এমপির জেষ্ঠপুত্র আলহাজ্ব মশিউর রহমান মোল্লার পক্ষে দলীয় মনোনয়ন আসলে তাদের দুশ্চিন্তার অবসান হবে।এর বাইরে বাকী যে কোন প্রার্থী মনোনয়ন পেলে তাদের পায়ের তলা থেকে মাটি সরে যাবে।