১) ডা , ফেরদৌস খন্দকার ঃ- নিউ ইয়র্কে বাড়ী বাড়ী গিয়ে চিকিৎসা সেবা দিয়েছেন , বাংলাদেশী আমেরিকান করোনা রুগীদের ।

মানুষকে অন লাইনে করোনাভাইরাস সংক্রান্ত পরামর্শ দিয়েছেন । দেশের মানুষের সুস্থতার কথা চিন্তাকরে গত শনিবার  একটি বিশেষ  ফ্লাইটে দেশে আসেছেন।করোনা মোকাবেলা করতে দেশের মানুষদের সাস্থ সেবা দিতে বিতরণ করছেন মেডিসিন সহ পিপিই , N95 ( ১ নং ) মাস্ক , গ্লাভস।

এর আগেও পাঠিয়েছিলেন এসব সামগ্রী।

বাংলাদেশের ডাক্তার , পুলিশ , সাংবাদিকদের দিয়েছেন পিপিই , N95 ( ১ নং ) মাস্ক , গ্লাভস , কুমিল্লার প্রতিবন্ধীদের অর্থ ও খাদ্য সাহায্য ইত্যাদি

২) শাহাদাত হোসাইন তাসলিম ঃ- আল্ রশীদ ফাউন্ডেশন এর মাধ্যমে তিনি জাতীয় ভাবে প্রতিদিন গড়ে ১০/১২ করোনা মৃতের লাশ দাফন করে যাচ্ছেন , এ পর্যন্ত ১০০ ‘র কাছাকাছি লাশ দাফন হয়ে গেছে । ঢাকা সহ সারা দেশেই তিনি কাজ করছেন ।

আঞ্জুমানে মফিদুল ইসলাম ধর্ম মন্ত্রনালয়কে লাশ দাফনে অপারগতা প্রকাশের পর , তাসলিম সাহেব আল্ রশীদ ফাউন্ডেশন গঠন করেন , এবং সাতটি ফ্রিজিং লাশ টানার গাড়ী , কয়েকটি এম্বুলেন্স নিজ টাকায় কিনেন , তাছাড়া ত্রিশ জন স্বেচ্ছাসেবককে ট্রেনিং দিয়ে লাশ ধোয়া ও দাফন কাজে নিয়োজিত করেন ।

৩) ইউসুফ মোল্লা টিপু। কুমিল্লা মহানগরে এ পর্যন্ত আটোটি লাশ নিজে উপস্থিত থেকে দাফনকাজ সম্পাদন করেছেন তিনি । নিজ এলাকাজুড়ে যথেষ্ট ত্রাণও দিয়েছিলেন।

৪)আবু কাউসার অনিক ঃ- কুমিল্লা জেলার দেবিদ্বার উপজেলায় ৪১ সদস্য বিশিষ্ট হ্যালো ছাত্রলীগ হট লাইন চালু করেন । দেবিদ্বারে করোনা মৃত প্রায় সকল লাশের দাফন তারাই করেছেন ।

আমাদের এই বীর যোদ্ধাদের আমি ধন্যবাদ জানাচ্ছি , এবং তাদের জন্য শুভ কামনা করছি , মহান আল্লাহ্‌ যেন তাদের সুস্থ রাখেন ।

আমার বিশ্বাস তাদের দেশপ্রেম , কর্ম পদ্ধতি , সাহসীকতা আরো অনেককেই মানবতার সেবায় আত্মনিয়োগে উৎসাহিত করবে ।

তোমাদের এই ঋণ
কোন দিন শোধ হবে না –