বরগুনায় আবারো প্রকাশ্যে পাইপে বেঁধে পেটানো হয়েছে এক কিশোরকে। শতাধিক লোক শুধু দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে ঘটনা দেখেছে, কেউবা করেছে ভিডিও ধারণ। কিন্তু প্রতিরোধে এগিয়ে আসেনি কেউ।

আহত কিশোর সজিব এখন বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর পুলিশ নির্যাতনকারীদের একজনকে গ্রেফতার করেছে।

কবুতর চুরির অভিযোগে সজিবকে ঘর থেকে ধরে এনে বরগুনার পরিখাল নামের গ্রাম্য বাজারে পাইপের সাথে দুহাত বেঁধে অমানবিক নির্যাতন চালায় কিরণ। শত শত মানুষ দাঁড়িয়ে দেখলেও কেউ প্রতিবাদ করেনি। তবে ভিডিও ধারণ করায় এক পর্যায়ে ক্ষিপ্ত হয় নির্যাতনকারী।

নির্যাতনের শিকার সজিবের স্বজনরা বলেন, কবুতর চুরির অভিযোগে তাকে এভাবে পিটিয়েছে। মানুষ গরুকেও এভাবে মারে না।

গত বছর জুন মাসে বরগুনার কলেজ রোড এলাকায় রিফাতকে প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যা, গত মাসে পায়রা নদীপারের গুলবুনিয়া এলাকায় হৃদয় নামের কিশোরকে প্রকাশ্যে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। একের পর এক প্রকাশ্যে এ ধরণের অপরাধ নৈতিকতার অবক্ষয় বলে মনে করছেন সচেতন মহল।

এ প্রসঙ্গে জাগোনারীর প্রধান নির্বাহী হোসনেয়ারা হাসি বলেন, অন্যায় করার জন্য কারো না কারো মাধ্যমেই এরা তৈরি হয়েছে। জানিনা রাষ্ট্রের কতটা টনক নড়েছে, তবে বরগুনায় দিন দিন এটি ভয়াবহ রূপ নিচ্ছে।

অবশ্য পুলিশ বলছে, এ ঘটনায় যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

বরগুনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ শাজাহান বলেন, ভিকটিমের মায়ের অভিযোগের প্রেক্ষিতে মামলা করা হয়েছে। আসামীদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

গত শুক্রবার নির্যাতনের ঘটনা ঘটলেও ভিডিও ভাইরাল হয় রোববার (৭ জুন)। পরে নির্যাতনের শিকার সজিবের মা বাদী হয়ে সদর থানায় মামলা করলে কিরণকে গ্রেফতার করে পুলিশ।