গণঅভ্যুত্থান দিবস উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট কেন্দ্রীয় কমিটির উদ্যোগে পুস্পমাল্য অর্পণ ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রবিবার (২৪ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে বকশীবাজারস্থ নবকুমার ইনস্টিটিউটে এ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এর আগে নবকুমার ইনস্টিটিউটে গণঅভ্যূত্থানের কিশোর শহীদ মতিউর রহমানের স্মৃতিসৌধে সংগঠনের সহ সভাপতি ও স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের কন্ঠশিল্পী রফিকুল আলম, উপদেষ্টা লায়ন চিত্ত রঞ্জন দাস, সাধারণ সম্পাদক অরুন সরকার রানা, সাংগঠনিক সম্পাদক চিত্রনায়িকা শাহনুর, এম.এ করিম, নাট্যশিল্পী দীপাবলী দীপা এর নেতৃত্বে নাট্য ও চলচ্চিত্র শিল্পীদের শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

সংগঠনের উপদেষ্টা লায়ন চিত্তরঞ্জন দাসের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সহ সভাপতি কন্ঠশিল্পী রফিকু আলম, চিত্রনায়িকা শাহনুর, সাধারণ সম্পাদক অরুন সরকার রানা, আওয়ামী লীগ নেতা এম.এ করিম, জোটের নেতা জয়দেব রায়, নূর মোহাম্মদ, জাহিদ, নাট্যশিল্পী দীপাবলী দীপা, হাবিবুল্লাহ রিপন, মনিরুজ্জামান অপূর্ব, মো. অপু প্রমুখ।

রফিকুল আলম বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ঘোষিত ৬ দফা ও ছাত্র সমাজের ১১ দফার প্রেক্ষিতেই সংঘটিত হয়েছিল এই গণঅভ্যুত্থান। স্বাধীনতা একদিনে আসে নাই। বঙ্গবন্ধুর দীর্ঘ সংগ্রামের ফসল হচ্ছে স্বাধীনতা। বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাঙালি জাতির স্বাধীনতার জন্য দীর্ঘ সংগ্রাম আন্দোলন করেছেন।

কোন ব্যক্তির ঘোষণায় স্বাধীনতা হয়নি মন্তব্য করে তিনি বলেন, জিয়াউর রহমান স্বাধীনতার ঘোষক নন, তিনি ছিলেন পাকিস্তানীদের চর হিসেবে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিলেন। বিএনপি একটি মৌলবাদী শক্তি। স্বাধীনতার পরাজিত শক্তিদের নিয়ে বিএনপি গঠিত হয়েছিল। তারা পাকিস্তানের চর। বিএনপি ভারত বিদ্বেষী প্রচারণা করে এই কারণে যে তারা মনে প্রাণে মুক্তিযুদ্ধে যারা সহযোগিতা করেছিল তাদের সহ্য করতে পারে না।

তিনি আরও বলেন, করোনার মত বিধ্বংসী মহামারী রোধে যখন সব রাজনৈতিক বিবেচনা ভুলে বিএনপি সুশীল সমাজ সবারই জনগণের পাশে দাঁড়ানো এবং তাদের মনে সাহস যোগানো দরকার ছিল তখন তারা এই মহামারীকে ও তাদের রাজনৈতিক উদ্দেশ্য সাধনে ইস্যু করার চেষ্টা করছে। করোনার বিরুদ্ধে সরকারের প্রতিটি পদক্ষেপ সফল করার কাজে সাহায্য করার বদলে ব্যর্থ করার জন্য চক্রান্ত চালাচ্ছে। এটা সরকার বিরেধীতা নয়, জাতিদ্রোহীতা।

অভিনেত্রী শাহনুর বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর কন্যা বাংলাদেশের যে উন্নয়ন করেছে বিশ্ববাসী তাকে নিয়ে এখন গবেষণা শুরু করেছে। তিনি আজ সারা পৃথিবীর রোল মডেল।

তিনি বলেন, বিএনপি ক্ষমতায় থাকাবস্থায় দেশের উন্নয়ন করতে পারে নাই। জননেত্রী শেখ হাসিনা যে উন্নয়ন করেছে তার ১৬ ভাগের ২ ভাগও বিএনপি করতে পারে নাই। বিএনপি এখন জননেত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে বিভিন্ন ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। শেখ হাসিনার আলোতে বাঙালি জাতি আজ বিশ্বের বুকে আলোকিত জাতি হিসেবে রূপান্তরিত হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, শেখ হাসিনার বিকল্প জননেত্রী শেখ হাসিনাই। আমাদের শিল্পী সমাজকে যেভাবে মূল্যায়ন করেছেন, দেশবাসীর জন্য যেভাবে কাজ করে যাচ্ছেন আমাদের সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার জন্য কাজ করতে হবে। শেখ হাসিনা হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার প্রতীক। আর বিএনপি হচ্ছে স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি। বিএনপি যতদিন থাকবে বাংলাদেশের মাটি থেকে ততদিন সন্ত্রাস নির্মূল হবে না।