কুমিল্লার হোমনায় বাড়িতে একা পেয়ে আঃ মতিন (৫৫))নামের এক লম্পট ৬ষ্ট শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার সকাল ৯ টার দিকে হোমনা পৌর সভার শ্রীমদ্দি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ধর্ষক আঃ মতিন একই গ্রামের লালু মিয়ার ছেলে। আজ শুক্রবার ধর্ষিতার মা বাদী হয়ে হোমনা থানায় মামলা করে। ধর্ষিক মতিন পলাতক।

থানা ও ধর্ষিতার পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, ধর্ষিতা ছাত্রী টি উপজেলা সদরে অবস্থিত একটি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৬ষ্ট শ্রেণির নিয়মিত ছাত্রী। করোনার কারনে বিদ্যালয় ছুটি থাকায় সে বাড়িতে ছিল। তার পিতা মাতা কাজে চলে যাওয়ায় তার ছোট ভাইকে সাথে নিয়ে সে ঘরের চৌকির উপর শোয়া ছিল। এ সময় তাদের পূর্ব পরিচিত ( দুর সম্পর্কের নানা) রিক্সাচালক লম্পট আ. মতিন ঘরে ঢুকে ঘরের দরজা বন্ধ করে ওড়না দিয়ে দুই ভাই বোনের হাত, ও মুখ বেঁধে ধর্ষণ করে।
এ সময় তার গোঙানীর শব্দ শুনে পাশের বাড়ির তার চাচাতো বোন এগিয়ে এলে ধর্ষণকারী পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা ধর্ষণের শিকার ওই স্কুলছাত্রীকে হাতের বাধন খুলে নগ্ন অবস্থায় উদ্ধার করে। এ সময় ধর্ষণের আলামত দেখে তার বাবা মাকে খবর দেয় তারা। বাবা মা বাড়ি এসে এ ঘটনা জানতে পারে। শুক্রবার এ ঘটনায় হোমনা থানায় একটি ধর্ষণ মামলা হয়েছে। মামলা নং-৩, তারিখ ৫/৬/২০২০খিঃ।ধারা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০(সং/৩)এর৯(১)।
হোমনা থানার (ওসি) তদন্ত মো. আমিনুর রসুল জানান এ ঘটনায় ধর্ষক আঃ মতিনকে আটক করতে পুলিশ সর্বাত্মক চেষ্ঠা করছে। যতক্ষন ধর্ষক গ্রেফতার না হবে ততক্ষন পুলিশি অভিযান অব্যহত থাকবে।