মো.আক্তার হোসেন (রবিন), দেবিদ্বার (কুমিল্লা): করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া দেবিদ্বার উপজেলায় নবিয়াবাদ গ্রামের ভূইয়া বাড়ির সাবেক কৃষি কর্মকর্তা মো.শাহেদ আলী ভূঁইয়ার ছোট

ছেলে হেলাল ভূঁইয়ার জানাজা ও দাফনে তার স্বজনরা এগিয়ে না আসায় দা‌য়িত্ব নিলেন স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা লিটন সরকার।

তাকে সহযোগিতা করেছেন উপজেলার কুরুইন গ্রামের আলহাজ্ব মো.আবদুল লতিফ মাস্টারের ছোট ছেলে ছাত্রলীগ কর্মী হাফেজ আবদুল্লাহ-আল-মামুন সরকার ও তার বন্ধুরা। হাফেজ আবদুল্লাহ-আল-মামুন সরকার আমাদের দেবিদ্বার পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক এ.টি.এম সাইফুল ইসলাম মাসুমের আপন ছোট ভাই।

হাফেজ আবদুল্লাহ-আল-মামুন সরকার লাশের ‌গোসল থেকে শুরু করে জানাজার নামাজ ও দাফন সম্পন্ন করেন।

আমাদের দেবিদ্বার পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক, এ.টি.এম সাইফুল ইসলাম মাসুম এ বিষয়ে বলেন, আমার ভাইটির হাফেজি পড়ার সার্থকতা আজ পূর্ণ হলো। আজই আমি মামুনকে অনুমতি দিয়ে দিলাম আমি মারা গেলে এবং আমার আব্বা মারা গেলে মামুন যেন জানাজার নামাজ পড়ান। ধন্যবাদ মামুনকে যা আমি পারিনি তা তোমরা করিয়ে দেখাচ্ছো। আর্ত-মানবতার সেবায় স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা লিটনের ভূমিকা অপরিসীম। এই সেবায় অসাধারণ উদাহরণ তৈরি করেছেন লিটন সরকার।

এছাড়াও করোনাভাইরাসের কারণে সৃষ্ট পরিস্থিতিতে শ্রমজীবী, গরিব ও দুঃখী মানুষের পাশে সাধ্য অনুযায়ী লিটন দাঁড়িয়েছে। ধন্যবাদ লিটনকে। ভালো থেকো। এছাড়াও হাফেজ আবদুল্লাহ-আল-
মামুনরা হ্যালো ছাত্রলীগ এর হয়ে করোনা ভাইরাস পার্দুভাবে গৃহবন্দী মানুষও পরিবারের কর্মহীন মানুষের মাঝে খাদ্য সমাগ্রী দিচ্ছেন যা অসাধারন।